ঝরঝরে পোলাউ রান্নার কিছু টিপস

ঝরঝরে পোলাউ রান্নার কিছু টিপস

ঝরঝরে পোলাউ রান্নার কিছু টিপস

ছবি ও টিপসঃ বীথি জগলুল

ধরুন, আপনি এক কাপ চালের পোলাউ রান্না করবেন। সেক্ষেত্রে আপনাকে যা করতে হবে তা হলোঃ

১। এক কাপ চালের জন্য ২ কাপ পানি নেবেন। অর্থাৎ, যে কাপে চাল মাপবেন সেই কাপের দ্বিগুণ পানি দেবেন। (চাল আধা ঘন্টা ভিজিয়ে রেখে পানি ঝরিয়ে নেবেন)।

২। তেলের মধ্যে পেঁয়াজ বেশীক্ষন ভাজবেন না। (আমি পোলাউয়ে পেঁয়াজ দেইনা। জিরা, গরমমসলা ফোঁড়ন দিয়ে চাল ভাজি)

৩। পেঁয়াজ লাল করে ফেললে খিচুড়ি/পোলাউয়ের রঙ নস্ট হয়ে যায়।

৪। চাল অনেক্ষণ ধরে ভাজবেন। চালের রঙ পরিবর্তন হলেই বুঝবেন এইবার পানি দিতে হবে।

৫। চাল ভাজার সময় আদা/রসুন দেবেন না।

৬। পানি দেয়ার পর আদা/রসুন দেবেন।

৭। পানি দেয়ার পর সাথে সাথে ঢাকনা দেবেন না।

৮। চাল আর পানি এক লেভেলে আসলে তখন ঢাকনা দেবেন।

৯। চাল আধা সেদ্ধ হলে ঢাকনা খুলে একবার নেড়ে দিয়ে কাঁচামরিচ মিশিয়ে আবার ঢাকনা দিয়ে দেবেন।

১০। সব চেয়ে ভাল হয় এই সময় লোহার তাওয়ায় হাঁড়ি বসিয়ে দমে দিলে। পনেরো-বিশ মিনিট দমে রাখলেই পোলাউ রেডি!!

** পরিবেশনের পাত্রে পোলাউ বেড়ে ওপরে বেরেস্তা ছিটিয়ে পরিবেশন করবেন।

** বিরিয়ানির পানির ক্ষেত্রে যেভাবে করবেনঃ

বিরিয়ানিতে যেহেতু মাংস দিতে হয়, মাংস রান্নার কিছুটা গ্রেভি বা ঝোল তো থাকেই। তাই পোলাউয়ের তুলনায় বিরিয়ানিতে পানি কিছুটা কম দিতে হয়। যেমনঃ ১ কাপ চালের জন্যে পৌনে ২ অথবা দেড় কাপ পানি লাগে। এটা চালের কোয়ালিটি ও মাংসের গ্রেভি কতোটা রাখা হয়েছে– সেটার উপরেই সম্পূর্ণ ডিপেন্ড করে।

**বাসমতি চাল বেশীক্ষণ ভাজতে হয়না। তেলে চাল দেয়ার পর কাঠের খুন্তি বা স্প্যাচুলা দিয়ে আলতো করে কয়েকবার মিশিয়ে নিয়েই পানি দিতে হয়।

**আশা করি টিপসগুলি আপনাদের কাজে দেবে। ভালো থাকবেন।আর আমাদের সাথেই থাকবেন। পানি– এক কাপ চালের জন্যে দেড় কাপ।

**নোটসঃ

আমি রুম টেম্পারের পানি ইউজ করি। আপনারা চাইলে গরম পানি ইউজ করতে পারেন।

এই রেসিপি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য লিখুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *